শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদঃ-
গোসাইরহাটে বড় কাচনা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার নাটোরের বড়াইগ্রামে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যের মরদেহ উদ্ধার কুচাইপট্টিতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ব্যক্তি উদ্যোগে খাদ্য সহায়তা ইকবাল হোসেন অপু এমপি’র নেতৃত্বে ২১আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণ চন্দ্রপুরে জাতির পিতার শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা তুলাসার ইউনিয়নে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকার ও আওয়ামী লীগ কাজ করে যাচ্ছে -ইকবাল হোসেন অপু এমপি বন্যায় প্লাবিত নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, চিকিৎসা সেবা ব্যহত ভিডিও কনফারেন্সে পুলিশ সুপারের মতবিনিময় করোনা আর বন্যা একসাথে মোকাবেলা করতে সরকার দক্ষতার পরিচয় দিয়েছে -উপমন্ত্রী শামীম
ভেদরগঞ্জে প্রধান শিক্ষিকার অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ

ভেদরগঞ্জে প্রধান শিক্ষিকার অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার ১৮নং দক্ষিণ মহিসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা লুৎফা খানমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের তদন্ত করেছে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। রোববার (২৬ জুলাই) বেলা ১০টায় ভেদরগঞ্জ উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আল আমিন ও গোলাম মোস্তফা অভিযোগের তদন্তে ওই বিদ্যালয়ে যান। এ সময় উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে লুৎফা খানমের অপসারণ দাবিতে বিভিন্ন শ্লোগান ও বিক্ষোভ করতে থাকে এলাকাবাসী। পরে তদন্তকারী ওই দুই কর্মকর্তা তদন্তের স্বার্থে সবাইকে শান্ত হতে বললে সবাই শান্ত হন। পরে তারা অভিযোগের তদন্ত শুরু করেন। এক এক করে এলাকাবাসীর কাছ থেকে সকল অভিযোগের স্বাক্ষ্য-প্রমাণ গ্রহণ করেন। বেলা ২টা পর্যন্ত উভয় পক্ষের স্বাক্ষ্য প্রমাণসহ বক্তব্য শুনে তদন্ত শেষ করে ওই দুই কর্মকর্তা চলে যাওয়ার সময় আবারও এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষিকা লুৎফা খানমের অপসারণ দাবিতে বিক্ষোভ করেন। এলাকাবাসীর দাবি, প্রধান শিক্ষিকা লুৎফা খানমকে ওই বিদ্যালয় থেকে অপসারণ করতে হবে।
গত ২৮ জুন লুৎফা খানমের বিরুদ্ধে ২১ দফা অনিয়ন, দুর্নীতি ও অসাদাচরণের চিত্র তুলে ধরে ২শ’ ৫জনের স্বাক্ষর সম্বলিত একটি অভিযোগপত্র ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভেদরগঞ্জ প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর প্রদান করেন এলাকাবাসী। অভিযোগের মধ্যে রয়েছে লুৎফা খানম বিভন্ন সময় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে বেয়াদবী ও অশ্লিল ভাষায় অপমান ও লঞ্ছিত করেন তাদের। তার দ্বারা দরিদ্র অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা বৈষম্য ও শারীরিকভাবে নির্যাতনের শিকার হন। অধিকাংশ সময় শিক্ষার্থীদের সাথে খারাপ ভাষা ব্যাবহার করেন। শিক্ষার্থীরা তার কাছে প্রাইভেট না পড়লে তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন। বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করেন। কেউ টাকা দিতে না চাইলে তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করেন এবং ম্যানেজিং কমিটির কাছে টাকা পয়সার কোন হিসান দেন না। ওই স্কুলের এক শিক্ষিকাকে শারীরিকভাবে নির্যাতনসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে মহিসার ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. মনিরুজ্জামান বলেন, প্রধান শিক্ষিকা লুৎফা খানমের অত্যাচারে ছাত্রছাত্রী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। তিনি এখানে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পর থেকেই ছাত্রছাত্রী, অন্যান্য শিক্ষক ও এলাকাবাসীর সাথে স্বেচ্ছাচারী আচরণ করে আসছেন। কেউ এর প্রতিবাদ করতে গেলে তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মামলা দেয়ার হুমকি দেওয়া হয়। আমরা এলাকাবাসী সবাই এক হয়ে তার এই অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারীর চিত্র তুলে ধরে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছি। অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে। আমাদের একটাই দাবি, এই স্বেচ্ছাচারী শিক্ষিকাকে এখান থেকে অপসারণ করতে হবে।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষিকা লুৎফা খানম বলেন, এলাকার কিছু লোক বিদ্যালয়ের মাঝখান দিয়ে রাস্তা তৈরী করতে চান। স্কুলের ভিতর দিয়ে রাস্তা দেওয়ার আমি কে? আমার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আছে, এটা তাদের ব্যাপার। কিন্তু এই রাস্তা তৈরীকে কেন্দ্র করে এলাকার কিছু লোক আমার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে। আমি এর সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করছি।
ভেদরগঞ্জ উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আল আমিন বলেন, ১৮ নং দক্ষিণ মহিসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা লুৎফা খানমের বিরুদ্ধে ২০৫ জনের স্বাক্ষরিত একটি অভযোগপত্র উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর দিয়েছেন এলাকাবাসী। অভিযোগের ভিত্তিতে উভয় পক্ষকে নোটিশ করে আজকে আমরা দুইজন কর্মকর্তা সরেজমিন তদন্তে যাই। সেখানে উভয় পক্ষের বক্তব্য শোনা হয়। পরে আমরা তদন্ত কাজ শেষ করে চলে আসি। শীঘ্রই তদন্ত প্রতিবেদন উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরণ করা হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




উন্নয়ন সহযোগীতায়ঃ- সেভেন ইনফো টেক
error: কপি করা দন্ডনীয় অপরাধ,যে কোনো প্রয়োজনে কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করুন।