সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদঃ-
নড়িয়ায় করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধের মৃত্যুতে ৩৩ পরিবার লকডাউনে শরীয়তপুর হাসপাতালে করোনা সন্দেহে মৃতের লাশ নিয়ে পালালো স্বজনরা জাজিরার গজনাইপুর ও চরধুপুরে ৩০টি বাড়িঘর কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা ইকবাল হোসেন অপুর পক্ষে নেতারা খাদ্য নিয়ে কর্মহীনদের বাড়ি বাড়ি নড়িয়ায় শ্বাসকষ্টে রোগীর মৃত্যু, করোনা সন্দেহে পাঁচ পরিবার লকডাউন শরীয়তপুরে শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি হওয়া এক রোগীর মৃত্যু শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শরীয়তপুরে এই প্রথম করোনা সন্দেহে এক তরুণী আইসোলেশনে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে বাড়ি বাড়ি এনামুল হক শামীম শরীয়তপুরে বিভিন্ন স্থানে পারভীন হক সিকদারের পক্ষে জীবানুনাশক স্প্রে
পিএসসি’র পাশের হারে র্শীষে ভেদরগঞ্জ, সর্বনিন্মে নড়িয়া উপজেলা

পিএসসি’র পাশের হারে র্শীষে ভেদরগঞ্জ, সর্বনিন্মে নড়িয়া উপজেলা

শহিদুজ্জামান খান ॥ শরীয়তপুর জেলায় প্রাইমারী স্কুল সার্টিফিকেট (পিএসসি) পরীক্ষায় পাশের হারে শীর্ষ স্থান অধিকার করেছে ভেদরগঞ্জ উপজেলা। এবছর ভেদরগঞ্জ উপজেলার শতকরা ৯৫ দশমিক ২১ ভাগ পাশ করেছে। এছাড়া ৪শ’ ৫০ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। জিপিএ-৫ প্রাপ্তদের ১শ’ ৬৩ জন বালক আর ২শ’ ৯০ জন বালিক। আর জেলার সর্বনিন্ম স্থানে রয়েছে নড়িয়া উপজেলা। নড়িয়া উপজেলার পাশের হার শতকরা ৮৩ দশমিক ৬০ ভাগ। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪শ’ ৮০জন। যাদের ১শ’ ৭১ জন বালক আর ৩ শ’ ৯ জন বালিকা রয়েছে।
এবারের ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, গোসাইরহাট উপজেলায় পাশ করেছে ৯৩ দশমিক ৮৮ ভাগ আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ১শ’ ২৮ জন। এদের মধ্যে ৪৯ জন বালক, ৭৯ জন বালিকা রয়েছে।
ডামুড্যা উপজেলায় পাশ করেছে ৯২ দশমিক ৬৪ ভাগ আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ১শ’ ৪২জন। এদের মধ্যে ৪৭ জন বালক আর ৯৫ জন বালিকা রয়েছে।
জাজিরা উপজেলায় পাশ করেছে শতকরা ৯১ দশমিক ২০ ভাগ আর জিপিএ-৫ পেয়েছে ১শ’ ৮৯ জন। এদের মধ্যে ৬০জন বালক এবং ১শ’ ২৯ জন বালিক।
শরীয়তপুর সদর উপজেলায় ৮৭ দশমিক ৮ ভাগ পাশ করেছে। এদের মধ্যে ২শ’ ৭৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। এদের মধ্যে ১শ’ ৩ জন বালক আর ১শ’ ৭০জন বালিক রয়েছে।
এবারের পিএসসি পরীক্ষায় ২১ হাজার ৮শ’ ২৯ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়।
এই সাফল্য সর্ম্পকে ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রাজিয়া সুলতানা বলেন, এ সফলতার আমাদের শিক্ষকদের জন্য উৎসর্গ করতে চাই। আমরা চেষ্টা করেছি। আর শিক্ষকরা প্রচুর পরিশ্রম করেছে। যার ফলে এ উপজেলা সম্মান বৃদ্ধি পেয়েছে। আগামীতে আরো ভালো করার জন্য শিক্ষকদের আন্তরিকভাবে কাজ করতে অনুরোধ করবো।
শরীয়তপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, যারা ভাল করেছে তারাতো অবশ্যই ধন্যবাদ পাবে। আর যাদের ফলাফল কাঙ্খিত হয়নি তাদেরকে মনযোগ বাড়াতে তাদিগ দেয়া হবে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




উন্নয়ন সহযোগীতায়ঃ- সেভেন ইনফো টেক
error: কপি করা দন্ডনীয় অপরাধ,যে কোনো প্রয়োজনে কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করুন।